বিনোদন ডেস্ক: বলিউড অভিনেতা ইরফানের মৃত্যুতে শোকাচ্ছন্ন ঢাকার শিল্পীরা। এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকসহ ও নানা মাধ্যমে অনেকেই শোক বার্তা জানিয়েছেন।
নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ফেসবুকে লেখেন, অবিশ্বাস্য! এমন হৃদয়ভাঙা খবর দিয়ে সকাল শুরু হলো।
অভিনেত্রী রোকেয়া প্রাচী বলেন, সকাল থেকে থমকে আছি। এরকম একজন অভিনেতা মিরাকলই ফিরেও আসতে পারতেন। সিনেমায় আমরা কত মিরাকল দেখি, তাই না? একজন নায়ক গুলি খেয়েও তো বেঁচে যায়। ইরফানের মতো এত বড়মাপের একজন অভিনেতার জীবনেও এমনটা ঘটতে পারতো—এটাই শুধু ভাবছি।

তিনি যদি ফিরে আসতেন শুধু ভারত নয়, বিশ্ব চলচ্চিত্র আরও লাভবান হতো। উনাকে হারিয়ে আমরা আসলে বঞ্চিত হলাম। একজন অভিনেতা শতভাগ দায়িত্বসহকারে এত নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন, তা আমি কাছ থেকে দেখেছি।আমরা তো এ পেশায় আছি কিন্তু কতটা পেশাদারিত্বের সঙ্গে কাজ করেছি? উনি তা করতেন। আমি তার অভিনয় দেখে এতটাই মুগ্ধ ছিলাম, যা বলার মতো না। ভারতে এত সুপারস্টার কিন্তু ইরফান খান একেবারে অন্য বিষয়। উনি আসলে সুপার পারফর্মার। তারপর যখন উনার সঙ্গে কাজ করার সুযোগ হলো, ‌‘ডুব’ ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করে বুঝলাম, এমনি এমনি এত বড় হননি। আসলে অনেক সমৃদ্ধ তিনি। ইরফান কখনও ফাঁকি দেন না। তিনি বাংলা শেখার জন্য কী অনুশীলনটাই না করেছেন। এমনকি শুধু ভাষা নয়, উনার আগ্রহ ছিল এ দেশের রাজনীতি, সংস্কৃতি ও মানুষ নিয়েও। কারণ, এগুলোও পরোক্ষভাবে তার কাজের অংশ ছিল বলে মনে করতেন তিনি। খেয়াল করে দেখেছি, উনার আশপাশে যারা আছেন, তাদের উনি এড়িয়ে যান না। তিনি সবাইকে তার কাজের অংশ মনে করেন। সবসময় যোগাযোগের চেষ্টা করেন। তিনি যখন অসুস্থ হলেন, তার টিমের সঙ্গেও আমার যোগাযোগ ছিল। তাই হয়তো মনে মনে ভাবতাম, এত পরিশ্রমী একজন মানুষ, লড়াই করে ফিরে আসবেন।

কিন্তু হলো না। তিশা বলেন, তিনি একজন অসাধারণ শিল্পী, যিনি জানেন কীভাবে নিখুঁতভাবে এই পৃথিবীর মাটির মানুষ হয়ে থাকা যায়। বিশ্ব চলচ্চিত্রের সত্যিকারের রত্ন তিনি। যার মাধ্যমে অভিনয়শিল্পের একটি প্রজন্ম অনুপ্রেরণা পেয়েছে। তিনি এমন এক অনন্য অভিনেতা, যিনি শ্রোতাদের সঙ্গে মানবিক এক যোগসূত্র তৈরি করতে পেরেছেন। ইরফান খান, আপনি শান্তিতে ঘুমান, আপনার উত্তরসূরিরা এ কাজটি চালিয়ে নিয়ে যাবে। পার্ণো মিত্র বলেন,একজন মানুষ, যাকে আমি প্রশংসা করতাম। একজন অভিনেতা, যার দিকে আমি তাকিয়েই থাকতাম। আর একজন সহশিল্পী, যার সঙ্গে কাজ করতে প্রচণ্ড ভালোবাসতাম। আমি আপনাকে মিস করবো ইরফান। চিরকুট ব্যান্ডের সুমি বলেন, ইরফান খান এত শক্তিমান, এত বেশি জীবনঘনিষ্ঠ অভিনেতা আর কবে আসবে জানি না। তার এই অকাল মৃত্যু নিঃসন্দেহে পৃথিবীর জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। কারণ, কর্মগুণে তিনি হয়ে উঠেছিলেন সারা পৃথিবীর মানুষের। আমরা সৌভাগ্যবান যে, এই মহান অভিনেতার জন্য কাজ করতে পেরেছি। সৃষ্টিকর্তা আপনাকে ভালো রাখুন, প্রার্থনা! চলচ্চিত্র পরিচালক সৈয়দ অহিদুজ্জামান ডায়মন্ড বলেন, আমার সবচেয়ে প্রিয় এবং পছন্দের অবিশ্বাস্য শক্তিমান অভিনেতা ইরফান খান আর পৃথিবীতে নেই—এটা ভাবতেই বুকটা ভার হয়ে উঠছে।
আহা ইরফান খান! সত্যিই তুমি চলে গেলে! বিশ্ব চলচ্চিত্র আরেকটি ইরফান খান আর কি কখনও পাবে? না। প্রশ্নই ওঠে না।
অভিনেতা ওমর সানী বলেন,একজন শিল্পীর কোনও দেশ নেই। শিল্পী সবার। আমি তাকে কোনোদিন দেখিনি। তবু তিনি আমার বন্ধু, আমার ভাই। তিনি অসাধারণ অভিনেতা ইরফান খান! এক কথায় বলবো, স্যার সমতুল্য। সৃষ্টিকর্তা আপনাকে জান্নাতবাসী করুন।

অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী বলেন, এ কেমন দুঃসংবাদ! এত বড় একজন অভিনেতার অকাল প্রয়াণ! বিদায় ইরফান খান। আপনি বেঁচে থাকবেন, আপনার শিল্পে, আপনার কর্মে!
নায়ক শাকিব খান বলেন,বিদায় ইরফান খান। তার সাহসী আত্মা শান্তিতে থাকুক। এদিকে অভিনেত্রী-নির্মাতা নাজনীন হাসান চুমকী জানান, তাদের পূর্বনির্ধারিত সিরিজ নয়নতারা হাউজিং লিমিটেড’-এর চতুর্থ কিস্তি আজ (১৯ এপ্রিল) রাতে মুক্তির কথা থাকলেও সেটি স্থগিত করেছেন ইরফান খানের শোকবার্তাটি পেয়ে। তিনি বলেন, ‘আজ আর কোনও রিলিজ নয়। আজ আমরা অভিনেতারা সত্যিই শোকাহত। এদিকে ইরফান খানের প্রস্থানের খবর পেয়ে ফেসবুকে একটি অডিও লিংক শেয়ার করেছেন দুই বাংলার অন্যতম অভিনেত্রী জয়া আহসান। প্রচলিত, এটাই ছিল ইরফান খানের বলে যাওয়া শেষ বার্তা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here