নিজস্ব প্রতিবেদক, বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তির লাশ দাফনেও বাধা দিচ্ছেন এলাকাবাসি। এর আগে গেল শুক্রবার রাতে অসুস্থ্য স্বামীকে নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার জন্য রাতভর চেষ্টা করলে এলাকবাসিরা সহযোগিতা করেনি।
স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, দাফনের উদ্যোগ নেওয়া হলে কেউ করোনা-আতঙ্কে লাশ ছুঁতে রাজি হয়নি। অনেক অনুরোধের পর অন্য এলাকার দুজন ব্যক্তিকে রাজি করানো হয়। এরপর লাশ দাফনের জন্য কবর খুঁড়তে গেলে প্রথমে স্থানীয় লোকজন বাঁধা দেন। পরে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শিবগঞ্জে দাফনের উদ্দোগ নিলেও তা পন্ড করে দেয় এলাকাবাসি। এরপর কিছুটা দূড়ে সরকারি খাঁস জমিতে এক পীরের মাজারের পাশে দাফনের চেষ্টা করলে সেখানেও বাধাঁ দেন স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজবাউল হোসেন এবং ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বিএনপির সমর্থিত সাবেক ইউপি সদস্য সুজাউদ্দোলা। দাফনে বাঁধা দেয়ার সময় এলাকাবাসিও তাদের সাথে ছিলেন।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজবাউল হোসেন লাশ দাফনে বাঁধা দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে তিনি বলেন, করোনার উপসর্গ নিয়ে সে মারা যাওয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রামণের আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এলাকাবাসীর দাবির পেক্ষিতে কবর খুড়তে বাঁধা দেয়া হচ্ছে।
শিবগঞ্জের উপজেলা নির্বাহি অফিসার (ইউএনও) আলমগীর কবির বলেন, করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়ায় পরিবারকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। এছাড়া আশপাশে ১০টি বাড়িও লকডাউন করা হয়েছে। তারপরও এলাকবাসি দাফনে বাঁধা দিচ্ছে। তবে চেষ্টা চলছে দাফনের।
বগুড়ার সিভিল সার্জন গউসুল আজিম চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের একজন মেডিকেল টেকনিশিয়ানের মাধ্যমে অ্যাম্বুলেন্সযোগে মঙ্গলবার (২৮মার্চ) বিকেলে ওই ব্যক্তির নমুনা ঢাকায় আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। যেখানে ওই ব্যক্তি মারা গেছেন, লাশ ওই এলাকাতেই দাফনের জন্য ব্যবস্থা নিতে সেখানকার উপজেলা প্রশাসনকে অনুরোধ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here