কি লিস্যা, তুমি মারব্যার জানলে বুঝলানি বাহ্

0
216

 

                            সুমন সরদার

প্রকৃতির রুপ বদলের পালায় চলছে বর্ষাকাল। আর বর্ষাকাল নিয়ে কবির কবিতা, শিল্পীর গানও রয়েছে প্রচুর। বৃষ্টির পানিতে নদী-নালা, খাল-বিল ডোবা পুকুর পানিতে থৈথৈ করে। শুধু তাই নয় মাঠের জমিতে জমানো পানিতে ভেসে আসা মাছ ধরতে মুখিয়ে থাকে মৎস্যশিকারীরা। এই সময়টাতে বেশ জমিয়ে মাছ ধরায় ব্যস্ত থাকে তারা। বিশেষ করে বর্ষাকালে গ্রামাঞ্চলে মাছ ধরার ধুম পড়ে যায়।

আমরা মাছে ভাতে বাঙালি কথাটি আর এমনি এমনি প্রচলন নয়। মাছ ধরতে আর খেতে বেশির ভাগ মানুষই পছন্দ করেন। এই সময়টাতে দেশি জাতের সুস্বাদু পুটিমাছ, টেংরা, কৈ, মাগুর, শিং, শৈল, টাকিসহ নানা ধরনের মাছ ডিম দেয়ার জন্য নতুন পানিতে ভেসে বেড়ায়। আর অনেক শিকারী ওঁৎ পেতে থাকে মাছ ধরার জন্য। তবে মাছ শিকার করাও কিন্তু চারটিখানি বিষয় নয়। মাছ ধরতে ধর্য্য সাথে সরঞ্জাম লাগে।

বাঁশের তৈরি, জাল দিয়ে বানানো কিংবা হাট- ঘাটে পাওয়া যায় এসব মাছ ধরার সরঞ্জাম। স্থানভেদে এসব উপকরণ এর নাম- ধাম ভিন্নতর হয়ে থাকে। দারকি, চাই, পলি/ পলা, আনতা, কুজি, ঠুসি, মাতুল, টেপা, বিভিন্নরকম নামে মাছ ধরার ক্ষেত্রে এসব উপকরণ ব্যবহার করে থাকে মৎস্যশিকারীরা।
শনিবার ঐতিহাসিক মহাস্থান হাট এলাকায় গিয়ে সরজমিনে দেখা গেল মাছ ধরার এসব সরঞ্জাম সাজিয়ে বিক্রি করছে কয়েকজন ব্যবসায়ী।

স্থানীয় গড়িয়া গ্রামের ব্যবসায়ী ওহেদুল দৃষ্টি ২৪.কমকে  জানান, বর্ষার মৌসুমে আমি ও বাড়িওয়ালী (স্ত্রী) আর দুজন শ্রমিক মিলে দারকি আর পলা বানাই। অন্যগুলো বাহির থেকে কিনে আনি। বাঁশ আর সুতো দিয়ে এই দুই ধরনের উপকরণ বানিয়ে হাটে বিক্রি করি। আর অন্য সময় কৃষিকাজ করি। করোনা পরিস্থিতিতে সংসার চলতে খাটাখাটুনি করি আর কি।

আরেক ব্যসায়ী আবু বক্কর জানালেন, আমি পাইকারি বাজার থেকে কিনে আনি।দারকি বড় ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা পিছ, মাঝারি ২২০টাকা, পলা১৩০, ঠুসি ৮০, মাতুল ৭০, টেপা ১৮০টাকায় বিক্রি করি। তবে দুপচাঁচিয়া উপজেলার ধাপের হাটে পাইকারি ও খুচরা এসব উপকরণ পাওয়া যায় বলে বক্কর জানালেন।

হাটে কথা হলো ষাটোর্ধ মোজাম্মেল এর সাথে। এসেছেন ধাওয়াকোলা এলাকা থেকে দারকি আর পলা কিনতে। মরানদীতে (তেলিহারা) নদিতে মাছ ধরে। সেই ছোট্ট বেলা থেকে মাছ ধরার সখ। বললেন, জিবনে অনেক মাছ ধরেছি। খাই আর বেচি(বিক্রি) করি। প্রতি বছর বর্ষাকালে সারারাত জেগে মাছ মারি (ধরি)। হাসতে হাসতে বলল মাছ ধরার যে কি লিস্যা তুমি মারব্যার জানলে বুঝলানি বাহ! ( মাছ ধরার নেশা অন্যরকম)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here