ধুনটে অনুপ্রবেশকারীর দাপটে আ’লীগ কোনঠাসা, ঘটছে হামলা মামলা

0
722

নিজস্ব প্রতিবেদক: 

বগুড়ার ধুনটে বিএনপি ও জামায়াত থেকে আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী হাইব্রিড নেতাকর্মীদের দাপটে ত্যাগী ও পরীক্ষীত নেতা কর্মীরা কোন ঠাসা হয়ে পড়েছে।

এসব হাইব্রিডদের নানা অপকর্ম ও অনৈতিক কর্মকান্ডে দলের অভ্যন্তরিন বিরোধসহ হামলা মামলার ঘটনাও ঘটছে। দলীয় বিরোধের সুযোগ নিয়ে হাইব্রিড নেতাকর্মীরা কতিপয় ক্ষমতাধর নেতার ছত্রছায়ায় থেকে দলের উপজেলা কমিটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের নামে নানা রকম ষড়যন্ত্র চালাচ্ছেন।

ত্যাগী নেতা কর্মীরা জানান, অনুপ্রবেশকারীরা সরকারীদলের ছত্রছায়ায় থেকে নানা রকম সুযোগ সুবিধা নেওয়াসহ দলের অভ্যন্তরীন গোপন তথ্য বিএনপির কাছে পাচার করারও অভিযোগ রয়েছে।

দলীয় সুত্রে জানা গেছে, ২০০৯সালে আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করার পর বিভিন্ন সময় স্থানীয় নেতাদের সাথে সংখ্যতা গড়ে তুলে চিকাশী ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য সোনারগাঁ গ্রামের কামরুল হাসান পেয়েছেন ধুনট উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রান বিষয়ক সম্পাদকের পদ। একই ভাবে ধুনট উপজেলা বিএনপির সহসভাপতির পদ ছেড়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য হয়েছেন নারায়নপুর গ্রামের আব্দুল খালেক ওরফে খালেক বিডিআর। উপজেলা জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক সম্পাদ (জাসাস) সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ ছেড়ে হেদায়েতুল ইসলাম গামা হয়েছেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক । সেই সুযোগে মোয়জ্জেম হোসেন নামের জামায়াত শিবিরের এক সদস্য ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ন স্বেচ্ছা সেবকলীগের সাধারন সম্পাদক হয়েছেন। ধুনট পৌর স্বেচ্ছাসেবকদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিবুজ্জামান রাজিব পেয়েছেন যুবলীগের সদস্য পদ।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র কয়েকজন নেতা জানান, ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পর স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তির নেতা কর্মীরা আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশ করতে শুরু করে। টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতা থাকার ফলে যমুনার বাধভাঙ্গা বানের পানির মতো অনুপ্রবেশ ঘটেছে। বিএনপি জামায়াতের কত সংখ্যক লোক এখন ’আওয়ামীলীগ’ করে এ হিসাব মেলানো কঠিন।

উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি টি আই এমনুরুন্নবী তারিক বলেন, দলের ক্ষমতাশালী শীর্ষ জনপ্রতিনিধিদের হাত ধরেই অনুপ্রবেশ করায় তারা এখন ত্যাগী নেতাকর্মীদের চেয়ে বেশী শক্তিশালী। অনুপ্রেবশকারী হেদায়েতুল ইসলাম গামা ও বাজিবুজ্জান রাজিব এখন বেশী বেপরোয়া।

এলাঙ্গী ইউনিয়ন আওয়ামীগীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়াম্যান এম তারেক হেলাল বলেন, গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিলের দিনে বাজিবুজান রাজিব সহ অনুপ্রেবেশ কারীদের হামলায় তিনি সহ তার বেশ কয়েজন নেতা কর্মী আক্রান্ত হয়েছিলেন। দলের কাছে নাশিল ও থানায় মামলা দিয়ে কোন প্রতিকার পাননি।

উপজেলা আওয়ামীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম খান শরিফ জানান,গত ২ মার্চ এক শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর পক্ষ নিয়ে রাজিবুজ্জামান রাজিব ও সনি নামের দুই অনুপ্রবেশ কারী সহ কয়েজন সন্ত্রাসী তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে তাকে কুপিয়ে আহত করে এবং তার ব্যবহৃত একটি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে।

এঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হলেও পুলিশ কোন আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনী। উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এস এম মতিউর রহমান জানান, রাজিবুজ্জামান তথ্য গোপন করে ছাত্রদল থেকে যুবলীগে প্রবেশ করে চাঁদাবাজি সহ নানা অপকর্ম ও দলের ত্যাগী নেতা কর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে। তথ্য ফাঁস হওয়ার পর তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য দলের হাই কমান্ডকে জানানো হয়েছে।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপা সিন্ধ বালা জানান, রাজিবুজ্জান রাজিবের বিরুদ্ধে ৬টি মামলা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা আছে কিনা খতিয়ে দেখতে হবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here