প্রকৃতি আজ বিমুখ!

0
308

হঠাৎ ঘুম ভেঙ্গে গেল, দরজার ফাঁক দিয়ে বারান্দার বৈদ্যুতিক আলোক রশ্মি ছোট্ট শয়ন কক্ষে উঁকি মারছে। আপসা আলোর ছায়াতলে বিছানা থেকে উঠে আস্তে আস্তে রাস্তার ধারের বেলকুনি’তে এসে প্রকৃতি’র পানে চেয়ে দেখি আকাশে এখনও অনেক রাত। দূরে কোথাও একটা কুকুর ডাকছে, ঝিঁ ঝিঁ পোকার ডাক কানে বাজছে। করোনা’র ভয়াল থাবা’য় অজানা এক ভয়ে মনটা আঁতকে উঠল। কিছুক্ষণ বেলকুনি’তে দাঁড়িয়ে থেকে শয়নকক্ষে প্রত্যাবর্তন করে টেবিলে রাখা পানির বোতলটা নিয়ে একটু পানি খেয়ে বিছানায় গা এলিয়ে দিলাম। অনেক চেষ্টা করে আর ঘুমাতে পারছি না, শৈশব কৈশোরের অনেক স্মৃতি মনে পড়ছে। গ্রামের আঁকা বাঁকা রাস্তায় পাড়া’র বন্ধু’দের সাথে সময় অসময়ে আড্ডাবাজি, বিকেলে ছোট বাজারে জব্বার চাচা’র চা’য়ের দোকানে চা খাওয়ার এক মিলন মেলা আজ শুধু স্মৃতি। মা’র কাছ থেকে টাকা নিয়ে বন্ধু’দের সাথে মাঝে মাঝে শহরের টকিজে দিবাকালীন সিনেমায়, শীতের রাত্রিতে দূরের কোন বাজারে রাজ লক্ষ্মী অপেরা,চৈতালি, বৈকালি অপেরা’য় যাত্রাপালা দেখতে যেতাম, সারারাত কেটে যেতো । যাত্রাপালা’র বিবেক এর করুণ সুর হৃদয়’কে নাড়া দিতো। কোন কোন সিনেমা’য় ভালোবাসা’র নিদারুণ যন্ত্রণায় অজান্তে দু’চোখ বেয়ে অশ্রু বেয়ে আসতো। মাঝে মাঝে মা’কে সিনেমা’র কাহিনী শুনাতাম, কত সামাজিক ছিল। এক সাথে পথচলায় কোন রোগ অন্তরায় হতে পারিনি, পারষ্পারিক মায়া, মমতা ও অকৃত্রিম ভালোবাসায় সমৃদ্ধ ছিল। হৈ হুল্লোড় করে বেরিয়েছি, কর্মক্ষেত্রেও আবেগী ভালোবাসায় এগিয়ে যাচ্ছিলাম। কিন্তু প্রকৃতি আজ বিমুখ! হঠাৎ এক ছোঁয়াচে করোনা ভাইরাস ( কোভিড-১৯) এর প্রাদুর্ভাব বিশ্বজুড়ে। জীবন বাঁচাতে, প্রজন্ম’কে বাঁচাতে সুরক্ষা’র জন্য আমরা আজ ঘরে। একটি ভাইরাস আমাদের মমত্ববোধে, মানবিকতায় কত বড় আঘাত করে আমাদের কে সবকিছু থেকে দূরে রেখেছে ভাবতে কষ্ট হচ্ছে। তারপরেও বৈশ্বিক সমস্যা, প্রকৃতির বিরূপ প্রভাব। বিছানায় শুয়ে শুয়ে ভাবছি আগামী’র ধরণী কেমন হবে? আমরা মানবজাতি সুরক্ষিত থাকবো তো? ভাবতে ভাবতে কখন যে রাতের আঁধার কেটে ভোর হয়ে গেছে টের পাইনি, তারপর ভোরের স্নিগ্ধতায় হিমেল পরশে শান্তি’র ঘুমে বিছানার এক কোণে স্বপ্ন রাজ্যে হারিয়ে গেলাম।

লেখক; ডেভিড হিমাদ্রী বর্মা। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here