বক জাতীয় পক্ষীর নামানুসারে বকরা থেকে বগরা এরপর ‘বগুড়া

0
387

স্টাফ রিপোর্টার

বগুড়ার নামকরণ পূর্বাপর ইতিহাস শীর্ষক আলোচনা সভা করেছে বগুড়া ইতিহাস চর্চা পরিষদ। জেলা গঠনের সঠিক ইতিহাস আবারও তুলে ধরলেন সরকারি মুজিবুর রহমান মহিলা কলেজের প্রফেসর বিশিষ্ট্য ইতিহাস গবেষক ড. বেলাল হোসেন।

তিনি দীর্ঘদিন ধরে তাঁর গবেষণায় ২১১ টি বই এর ওপর গবেষণা করে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন যে, বগরা খানের নামের সাথে বগুড়ার কোন সম্পর্ক নাই। বক বা বক জাতীয় পক্ষীর নামানুসারে বগলা, বকরা, বগলা ইত্যাদি নামের অপভ্রংশ হয়ে কালক্রমে বগরা থেকে বগুড়া নামের উৎপত্তি হয়েছে। যা তিনি তাঁর বিস্তারিত গবেষণায় তুলে ধরেছেন।

ওই সময় বগুড়ার নাম করণ নিয়ে যারা ইতিহাস রচনা করেছেন কোথাও বগরা খানের নামেই ‘বগুড়া’ নাম করণ হয়েছে তাঁর সঠিক ইতিহাস তুলে ধরতে পারেন নি। মূলত বগুড়া জেলার বিভিন্ন ঐতিহাসিক নিদর্শন, বিভিন্ন স্থানের নাম করণ বিশ্লেষণ করলে বগুড়া নাম করণের সঠিক ইতিহাস পাওয়া যায়।

শনিবার বিকেলে পৌরসভা মিলনায়তনে আলোচনা সভায় সংগঠনের সভাপতি বগুড়ার বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. সিএম ইদরিস এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বগুড়া পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম বাদশা।

উপস্থিত ছিলেন সাবেক মেয়র এ্যাড. একে এম মাহবুবর রহমান, সরকারি আজিজুল হক বিশ্বঃ কলেজের উপাধাক্ষ্য খৈয়ম কাদের, সরকারি মুজিবুর রহমান মহিলা কলেজের প্রফেসর ড. সাহিদুর রহমান, বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ মশিহুর রহমান, এড. শের আলী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আনোয়ারুল করিম দুলাল, পৌরসভার সচিব রেজাউল করিম, সাংবাদিক রেজাউল হাসান রানু, জিয়াউর রহমান, জহুরুল হক, তাহমিনা পারভিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক নেতা ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফজলে রাব্বি ডলার। এসময় বিভিন্ন পর্যায়ের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here