শাজাহানপুরে বিধবা ভিক্ষুককে ধর্ষণ চেষ্টা, বিচার পেতে থানায় অভিযোগ

0
596

শাজাহানপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি:

বগুড়ার শাজাহানপুরে এক বিধবা ভিক্ষুককে ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষনের চেষ্টাকারিকে এলাকাবাসি আটকে রাখলেও স্থানীয় প্রভাবশালী নান্টু মিয়া তাকে ছেড়ে দেয়। ঘটনার বিচারের দাবিতে থানায় অভিযোগ দিলেও ঘটনায় জড়িত কেউ আটক হয়নি।
সরেজমিনে জানাগেছে, উপজেলা ক্ষুদ্রফুলকোট গ্রামের এক বিধবা নারী (৫৫)। টিনের ছাপরা একটি ঝুপরি ঘরে দুই ছেলে এক মেয়ে নিয়ে জীবন যাপন করেন। সারাদিন অন্যের বাড়ি বাড়ি ভিক্ষা করে কোনমতো সংসার চালান।

গত ১৮ আগষ্ট রাতে প্রতিরাতের মতোই ঘুমিয়ে পড়েন ওই বিধবা। ওই সুযোগে রাত আনুমানিক ১১ টার দিকে প্রতিবেশি রুবেল হোসেন (৪৫) ঘরের দরজার বেড়া কেটে ঘরে মধ্যে ঢুকে পড়ে। এসময় জোরপূর্বক ধর্ষনের চেষ্টা চালায়।

ওই বিধবার চিৎকারে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে রুবেল। কিন্তু এলাকার লোকজন রুবেলকে আটক করেন। রুবেল ওই লাকার মৃত আমিন মিয়ার ছেলে। তিন সন্তানের জনক সে।

পরে রুবেলকে থানায় সোপর্দ করার জন্য স্থানীয় থানা পুলিশকে খবর দেয়ার চেষ্টা করেন এলাকাবাসি। ঠিক সে সময় ওই এলাকার নান্টু নামের এক প্রভাবশালী বিচারের আশ্বাস দিয়ে রুবেলকে এলাকাবাসির হাত থেকে ছাড়িয়ে নিয়ে যান।

এবিষয়ে নান্টুর সাথে যোগাযোগ করা হলে নান্টু বলেন, বিধবাকে ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনা সত্য। তবে শালিসের মাধ্যমে বিষয়টি সুরাহা করে দেয়ার কথা ছিলাম। সেজন্য রুবেলকে ছেড়ে দেই। কিন্তু রুবেল ঘটনার পর থেকে লাপাত্তা। তাই আমি তার উপকার করতে গিয়ে এখন বেকাদায় পড়ে গেছি।

স্থানীয় ভাবে বিচার না পেয়ে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে শাজাহানপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন ওই বিধবা। অভিযোগে ধর্ষনের চেষ্টাকারি রুবেল এবং তার দুই সগযোগী মিঠুন মিয়া (৩৫) ও উজ্জল হোসেন (৩৬) এর নাম উল্লেখ করেন।

এ বিষয়ে শাজাহানপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজিম উদ্দিন বলেন, ঘটনাটি জানা নেই। তবে অভিযোগ হলে অবশই তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here