সাতক্ষীরা থেকে গোবিন্দ এসেছে বগুড়ায়

0
415
                                         সুমন সরদার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নানা ধরনের ফলের মৌসুম চলছে। মধু মাস জৈষ্ঠ্যমাস জানান দিতেই আম, লিচু, জামরুল, বাঙ্গি, তরমুজসহ দেশিয় ফল নামতে শুরু করেছে। যদিও মুখ রাঙ্গাতে জাম আসতে একটু দেরিই হচ্ছে। কাঁঠালও আসতে সময় লাগছে, তবে পেয়ারা, কলা ভরবছর পাওয়া যায়। ফলের রাজা আম বাজারে আসতে শুরু করেছে। বগুড়া শহরের বাজার হয়ে হাটেঘাটেও পাওয়া যাচ্ছে গোবিন্দ ভোগ নামের আম। যদিও খুচরা ব্যাবসায়ীরা (ফেরিওয়ালা) গোবিন্দ ভোগ আমকে খিরসাপাত বা গোপাল ভোগ বলে বিক্রি করছে। আম পছন্দ করেন না এমন মানুষ বিরল বটে।

রসালো সুস্বাদু এই ফল পবিত্র মাহে রমজানে লিচুর পরে ইফতারে একটি মজার আইটেম হিসেবে যোগ হলো।

সাতক্ষীরা জেলার বেলতলা ও বাঘাচড়া এলাকা হতে অগ্রীম জাতের এই গোবিন্দ ভোগ আম এখন বগুড়ার বাজারে নেমেছে। এখানকার আড়তে আমের পরিস্থিতি বুঝে পাইকারী মণ প্রতি ২৮০০/৩০০০ হাজার টাকায় বিক্রি করছেন আড়তদাররা।

তবে বাজারে ও ফলের দোকানে খুঁচরা ১০০শ ১২০ টাকায় বিক্রি করছে গোবিন্দ ভোগ আম। সুস্বাদু এই ফল এখনো অপরিপক্ক আঁটি জাতীয় আম হওয়ায় বিষাক্ত রাসায়নিক দ্রব্য (কার্বাইড) মিশিয়ে বাজারে ছাড়া হচ্ছে কিনা এব্যাপারে বেশ সন্দিহান সচেতন ক্রেতারা।


পার্শ্ববতী দেশ হতে কার্বাইড আসত বলে দাবি করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন আড়তদার। গত বছর থেকে প্রশাসনের কঠোর নজরদারির ফলে বিষাক্ত ওই রাসায়নিক বাংলাদেশে কেউ আনতে সাহস করেনা।

তবে শিশির এন্টারপ্রাইজের আড়তদার আমীর আলী, দৃষ্টি ২৪ ডট কমকে জানান, আম খেতে পারেন নিঃসন্দেহে, তবে পরিস্কার পানিতে বেশ কিছুক্ষন ভিজিয়ে রেখে খেলে ভাল।
মশা, মাছি, ব্যাকটেরিয়া ও নানা ধরনের পোকা যাতে আমে আক্রমণ না করে এজন্য আম বাগানের মালিকরা গাছে আম অবস্থায় জীবানুনাশক ওষুধ স্প্রে করে থাকে।

ব্যবসায়ী বিদ্যুৎ দাবী করে বলেন, কার্বাইড মেশানোর প্রশ্নই আসেনা। ওই বিষ দেশেই আসেনা, ওখানকার আড়তদার ও আম বাগান মালিকদের কঠোর নজরদারির মধ্য রাখে সেখানকার প্রশাসন। আরও কিছু দিন পরে নানা জাতের আম বাজেরে নামবে তখন প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরীক্ষা করা হয়ে থাকে।

এদিকে আমের বিখ্যাত অঞ্চল রাজশাহীর আম শুক্রবার থেকে নামতে যাচ্ছে। গোপাল ভোগ, রানী পছন্দ, লক্ষ্মণ ভোগ, হিমসাগর বা খিরসাপাত, আম্রপালি ও ফজলিসহ নানা জাতের আম বেশ কিছু দিনের মধ্যে বাজারে আসছে বলে বানেশ্বর আড়তের ব্যবসায়ি, নূুর আহমদ জানান। দেরিতে নামবে ল্যাংড়া ও আশ্বিনা। তবে করোনা পরিস্থিতিতে বড় ব্যবসায়িরা এখনো মোকামে যাচ্ছেনা। কিছু খুচরা ব্যাবসায়ীদের আনাগোনা শুরু হয়েছে বানেশ্বর এলাকায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here