নিজস্ব প্রতিবেদক, করোনাভাইরাসের আতঙ্কের হাত থেকে কিছুটা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে মানুষ ব্যাপক হারে ছুটছে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের দিকে। কিন্তু ইতোমধ্যে বাজারে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে।

এমন সংকট থেকে কিছুটা উত্তরণের জন্য এগিয়ে এসেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজসহ বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন গবেষণা সংস্থা ও চিকিৎসকদের মতে, স্যানিটাইজারের তুলনায় অনেক বেশি কার্যকর সাবান-পানি, যা কিনা সহজলভ্য ও সাশ্রয়ী। স্যানিটাইজার ৬০ শতাংশ অ্যালকোহলিক দ্রবণে ভাইরাসকে ধবংস করতে কার্যকর। কিন্তু এর চেয়ে কমে খুব একটা কার্যকর নয়। অন্যদিকে সাবানের পানিও সমানতালে ভাইরাসের আবরণ বা ভাইরাসকে ধবংস করতে সক্ষম।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, হাতের ময়লা দৃশ্যমান হলে সাবান পানি দিয়ে ধুতে হবে। আর দৃশ্যমান না হলে অ্যালকোহলসমৃদ্ধ হ্যান্ড স্যানিটাইজার অথবা সাবান-পানি দিয়ে বারবার হাত ধুতে হবে।

ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ একটি গণমাধ্যমে বলেন, ‘সাবান দিয়ে ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধুলেই করোনাভাইরাস ধ্বংস হবে।’

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সৈয়দ কৌশিক আহমেদ বলেন, ‘হ্যান্ড স্যানিটাইজারের তুলনায় সাবান বেশি কার্যকর। সাবান ও পানি হাতের নাগালে থাকলে স্যানিটাইজারের তুলনায় সাবান ব্যবহার করা শ্রেয়।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভাইরাসের বাইরের আবরণ লিপিড দিয়ে তৈরি। অন্যদিকে সাবান হলো ক্ষার জাতীয় পদার্থ।  ক্ষার লিপিডের সাথে বিক্রিয়া করে লিপিডকে চূর্ণ-বিচূর্ণ করে করোনাভাইরাসকে ধ্বংস করতে সক্ষম। তাই অযথা হ্যান্ড স্যানিটাইজারের পিছে না দৌড়ে সাবান পানি ব্যবহারে আমাদের মনোযোগী হওয়া একান্ত জরুরি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here